রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:২৮ অপরাহ্ন

News Headline :
মহান বিজয় দিবস উদযাপন বাস্তবায়ন লক্ষ্যে তাড়াশে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত তাড়াশে ৫২ বছর বয়সে এসএসসি পাশ করলেন কৃষক মতিন তাড়াশে গোপনে ম্যানেজিং কমিটি করার অভিযোগ শপথ নিলেন সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্য শরিফুল ইসলাম তাজফুল তাড়াশে সুফলভোগীদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত তাড়াশে কৃষকের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও কৃষি উপকরণ বিতরণ  তাড়াশে ৫১তম জাতীয় সমবায় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত তাড়াশে সরকারি খাস জায়গা অবৈধভাবে দখল করে দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ কলেজ শিক্ষকের বিরুদ্ধে তাড়াশে মাধাইনগর ইউনিয়নের ৪ ও ৫ নং ওয়ার্ড যুবলীগের ত্রি- বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত তাড়াশে ৩টি ওয়ার্ড যুবলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ধুনট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের ব্যাতিক্রমি প্রশংসিত উদ্যোগ

মোঃ হেলাল উদ্দিন সরকার, ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : বুধবার ৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ২৯৪ বার পঠিত

মোঃ হেলাল উদ্দিন সরকার, ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ

বগুড়া ধুনট উপজেলার বর্তমান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব সন্জয় কুমার মহন্ত একটি ব্যাতিক্রমি, সর্বজনবিদিত, প্রশংসিত উদ্যোগ গ্রহন করেছেন – “প্রত্যেক মুক্তিযোদ্ধার জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতে চাই এবং যারা মৃত্যু বরণ করেছেন তাদের প্রয়াণ দিবসে স্মরন ও দোয়া করতে চাই।” বগুড়ার ধুনট উপজেলার ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়নের শহড়াবাড়ী গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরিদ উদ্দিনের বাড়িতে গিয়ে ফুল দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানানোর পর এই কথাগুলো বলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সঞ্জয় কুমার মহন্ত।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় ধুনট উপজেলার সকল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্মদিনের ডাটাবেজ তৈরী করতে গিয়ে দেখেন আজ উপজেলার ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়নের শহড়াবাড়ী গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরিদ উদ্দিনের জন্মদিন, তখন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার মহন্ত ভাবলেন তার বাড়িতে গিয়ে আমি তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাবো। যে কথা সেই কাজ, আর দেরী নয় – তিনি ফুল নিয়ে ছুটে গেলেন তার বাড়ী, বাড়িতে গিয়ে তাকে ফুল দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে সকলকেই সারপ্রাইজড করলেন। জন্মদিনের শুভেচ্ছা পেয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব ফরিদ উদ্দিন আবেগে আপ্লুত হয়ে যায়, সে সময় খুশিতে আবেগআপ্লুত কন্ঠে মুক্তিযোদ্ধা জনাব ফ‌রিদ উ‌দ্দিন বলেন, যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি ভ‌বিষ‌্যতে কোন কিছু পাব বলে এমনটা নয়। এই সরকার আমাদের অনেক কিছু দিয়েছেন এবং এখনো দিচ্ছেন,যা ভোলবার মতন নন। কিন্তু আজ উপজেলা নির্বাহী অ‌ফিসার আমার জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন, ফুল দিয়েছেন, আ‌মি খুবই খু‌শি হয়েছি। একজন মুক্তিযোদ্ধাকে একজন ইউএনও এভাবে শুভেচ্ছা জানাবে এটা কখনো কল্পনাও ক‌রি‌নি,ভাবতেও পারিনি ।

এ‌বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অ‌ফিসার জনাব সঞ্জয় কুমার মহন্ত বলেন, “যারা দেশের জন্য যুদ্ধ করেছেন তারা জা‌তির শ্রেষ্ঠ সন্তান। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বা মুক্তিযোদ্ধাদের অবদানের কথাগুলো জানা নতুন প্রজন্মের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা, একটা জাতি যদি তাদের ইতিহাস না জানে তাহলে তো অ্যামনেশিয়ায় ভুগবে। এটা তো একটা রোগ- ইতিহাস ভুলে যাওয়া, অতীত ভুলে যাওয়া। ইতিহাস না জানলে তো আমরা বর্তমানকেও ব্যাখ্যা করতে পারব না, আবার ভবিষ্যৎকেও দেখতে পারব না। তাই অবশ্যই মুক্তিযোদ্ধাদের অবদানের কথা নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরা প্রয়োজন।” ইউএনও হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম উপজেলার প্রত্যেক বীর মুক্তিযোদ্ধার জন্মদিনে ফুল নিয়ে হা‌জির হব। জন্মদিনের ডাটাবেজ তৈরী করতে কিছুটা সময় নষ্ট হয়েছে। তি‌নি বলেন যতদিন আমি এই উপজেলায় আছি ততদিন প্রত্যেকটি বীরমুক্তিযোদ্ধার জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানানো হবে এবং যে সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ ইতিমধ্যেই মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের প্রয়াণ দিবসে তাদেরকে স্মরণ করা হবে”।

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..