বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:০০ পূর্বাহ্ন

News Headline :
তাড়াশে সদ্য যোগদানকৃত শিক্ষা অফিসার ও নিয়োগপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের বরণ অনুষ্ঠান তাড়াশে ২ হাজার শীতার্তদের মাঝে এমপি আজিজের কম্বল বিতরণ বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে রাতে বিয়ে বাড়িতে ইউএনও তাড়াশে ৭০লিটার দেশীয় চোলাই মদসহ একজন আটক তাড়াশে শিক্ষার্থীদের রাস্তায় সুরক্ষার জন্য স্পিড ব্রেকার দিলেন ছাত্রলীগ তাড়াশে নবীন বরণ অনুষ্ঠানে ব্যানারে বঙ্গবন্ধুর ছবি না থাকায় অনুষ্ঠানে আসেননি চেয়ারম্যান ফেসবুকে মিথ্যা অপপ্রচার করায় প্রতিবাদ ২৬ দিনেও তদন্ত শেষ হয়নি, উদ্ধার হয়নি আট লক্ষাধিক টাকার ওষুধ তাড়াশে এক দিনের ব্যবধানে আরেকজন স্কুল ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা সফল করার লক্ষ্যে তাড়াশে যৌথ কর্মীসভা

এমপির পক্ষে সাংবাদিকের মামলায় সম্পাদক গ্রেফতার

সময়ের সংবাদ ডেস্ক
  • Update Time : শুক্রবার ২২ মে, ২০২০
  • ১২৪ বার পঠিত

ডেস্ক নিউজ:

সাংবাদিকতার মত সাহসী পেশা পৃথিবীতে আর কোনো পেশা আছে কিনা জানিনা। কিন্তু এই সাহসীকতা এখন নেহাত চামচামীতে পরিণত হয়েছে! প্রতিটি এলাকার সংবাদকর্মীরা প্রত্যেক এলাকার কোন একটা সিন্ডিকেট বা এলিট শ্রেণির হাতে বন্দি! এছাড়া জীবনেও সাংবাদিকতা করেনি বা দু’লাইন লিখতে পারবে না এমন লোকও প্রেসক্লাবের সদস্যসহ বিভিন্ন পদপদবী নিয়ে বসে আছে! আর প্রকৃত সংবাদকর্মীরা কোণঠাসা হয়ে সমাজের এক প্রকার ব্যক্তিদের স্বার্থের বলি হচ্ছে!
সম্প্রতি সাংবাদিকতার আড়ালে অতিরিক্ত তৈলমর্দন, পদলেহনকারী কথিত সাংবাদিকের সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে। পেশাদারিত্বের চেয়ে স্বজাতিকে নির্যাতন, নিপীড়নে উস্কানিসহ নানা অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে এদের বিরুদ্ধে।

নামকরা অনেক সাংবাদিক এখন অপসাংবাদিকতায় মেতে উঠেছেন। আবার দেখা যায়, অপসাংবাদিকরা সাংবাদিকতা করার মুখোশ পরে এই পেশার বারোটা বাজিয়ে দিচ্ছে। আসলে একটি দেশের সাংবাদিকতার গুণগত মান কতটুকু বা সাংবাদিকদের কার্যকলাপ সন্তোষজনক কিনা, তা বুঝতে হলে ওই দেশের পাঠক বা দর্শকদের মতামতের দিকে দৃষ্টি দিতে হবে। একটা সময় ছিল যখন সাংবাদিকদের থেকে মানুষ অনেক কিছু প্রত্যাশা করতো এবং এই পেশার সাথে সম্পৃক্ত মানুষদের সম্মানের সহিত বিবেচনা করতো। কিন্তু এখন সময় বদলে গেছে, সাথে বদলেছে সাংবাদিকদের প্রতি সাধারণ মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি। অন্য অনেক পেশার মতো সাংবাদিকতাও বিভিন্ন কারণে বিভিন্নভাবে কলুষিত হয়েছে। আগের মতো আস্থা পাঠকদের আর নেইও।

সাংবাদিকদের প্রধান কাজ হলো, পাঠকদের/দর্শকদের সঠিক তথ্য দিয়ে ওই নির্দিষ্ট বিষয় সম্পর্কে অবহিত করা। এটা না হলে তাকে হলুদ সাংবাদিকতা বলে। সাংবাদিকতার ধরন হওয়া উচিত বস্তুনিষ্ঠ বা ব্যক্তিনিরপেক্ষ। কিন্তু এখনকার সাংবাদিকতার অন্যতম লক্ষ্যণীয় উপাদান হলো, ব্যক্তিস্বার্থ। আর বস্তুনিষ্ঠতা এবং সাংবাদিকতার মধ্যে দূরত্ব এখন অনেক।

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..