শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৯:০৩ অপরাহ্ন

News Headline :
ফেসবুকে মিথ্যা অপপ্রচার করায় প্রতিবাদ ২৬ দিনেও তদন্ত শেষ হয়নি, উদ্ধার হয়নি আট লক্ষাধিক টাকার ওষুধ তাড়াশে এক দিনের ব্যবধানে আরেকজন স্কুল ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা সফল করার লক্ষ্যে তাড়াশে যৌথ কর্মীসভা তাড়াশে বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও নাটোর জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি হলেন সাইফুল ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর তাড়াশে বিদ্যালয় খোলা, ছাত্রছাত্রী নেই! তাড়াশে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অপপ্রচার প্রতিবাদে ইউনিয়ন আ:লীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিক্ষোভ মিছিল  সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান হলেন তাড়াশের তাজফুল তাড়াশে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান জবর দখলের অভিযোগ

মাস না যেতেই ঘাটাইলে কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কের বেহাল দশা

সময়ের সংবাদ ডেস্ক
  • Update Time : বুধবার ২০ মে, ২০২০
  • ২৫৩ বার পঠিত

বিধান চন্দ্র রায়,স্টাফ রিপোর্টারঃ

নির্মাণ শেষ হওয়ার মাস না যেতেই প্রায় কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার তারাগঞ্জ বাজার থেকে একাশী বাজার পর্যন্ত ১ কি.মি. সড়কের বিভিন্ন অংশ ধসে গেছে।সড়কটির পুঃসংস্কার চেয়ে ইউএনও বরাবর আবেদন করেছেন এলাকাবাসি।

উপজেলা এলজিআরডি অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে উপজেলার গৌরাঙ্গী উত্তরপাড়া থেকে একাশী স্কুল পর্যন্ত ১ কি.মি. রাস্তাটি পাকা করণের জন্য ৯৪ লাখ ৯৪ হাজার টাকা বরাদ্দ হয়। সড়ক নির্মাণে কাজ করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স শোভা এন্টারপ্রাইজ, আর এটি বাস্তবায়ন করে মেসার্স লৌহজং এন্টারপ্রাইজ।

বহুদিনের কাঙ্খিত সড়কটি মাস না যেতেই বিভিন্নস্থানে ধসে যাওয়ায় পুনঃসংস্কার চেয়ে ইউএনও বরাবর আবেদন করেছেন এলাকাবাসী বলে জানান স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য খসরু তালুকদার।

আবেদনে উল্লেখ করা হয়, রাস্তাটির নির্মাণ শেষের বিশ দিন যেতে না যেতেই সামান্য বৃষ্টিতে সড়কের বিভিন্ন অংশ ধসে গেছে। এতে করে যান চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে রাস্তাটি। ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন।

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী আরজু বলেন, সড়কটি আমার গ্রামের হলেও আমার খুব একটা যাতায়াত নেই এটি দিয়ে। পরে এলাকাবাসীর মাধ্যমে জানতে পেরে সরেজমিনে গিয়ে বেহাল দশা দেখতে পাই। গ্রামবাসীর সাথে আলোচনা করে সড়কটির পুনঃসংস্কার চেয়ে সবাই মিলে ইউএনও বরাবর লিখিত আবেদন করা হয়েছে।

ঘাটাইল উপজেলা সহকারি প্রকৌশলী আশরাফ জানান, রাস্তাটির নির্মাণ কাজ এখনো শেষ হয়নি। এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে পরির্দশনে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পেয়িছি। রাস্তাটি পূনঃসংস্কার দরকার। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়ে উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলি, সংশিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে ঘটনার সত্যতা জেনেছি। বিষয়টি আমি জেলা প্রশাসককে অবহিত করেছি। তিনি সড়কটি পুঃনসংস্কার না করা পর্যন্ত বিল ছাড় না দেয়ার জন্য বলেছেন।

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..