বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন

তাড়াশে মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান মিঞার তাল সড়ক

admin
  • Update Time : রবিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ২১৫ বার পঠিত

গোলাম মোস্তফা, নিজস্ব প্রতিবেদক, সময়ের সংবাদ:

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান মিঞার এক মহান কীর্তি উপজেলার তাল সড়ক। তাড়াশ থেকে ভূঁইয়াগাতি পর্যন্ত ১৬ কিলোমিটার রাস্তার দু’পাশে পরিকল্পিত ও সারিবদ্ধভাবে লাগানো একসাথে সাত হাজার তালগাছসমৃদ্ধ এ সড়কটি দেখতে প্রতিদিন দূর-দূরান্ত থেকে অনেকেই ছুটে আসেন। নির্মল সবুজের হাতছানিতে তাড়াশের ঐতিহ্যবাহী তাল সড়ক এখনও বৃহত্তর চলনবিলের তালবৃক্ষের সবচেয়ে বড় সম্ভার। দীর্ঘ ৪ বছর যাবত্ সড়কটি তাল সড়ক হিসেবে পরিচয় বহন করছে।

মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান মিঞা ১৯৭৩-৭৪ সালে ছিলেন উপজেলার মাধাইনগর (সদর) ইউনিয়নের মনোনীত চেয়ারম্যান। ১৯৭৫-৮৪ পর্যন্ত দু’দফায় ৯ বছর নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। চেয়ারম্যান থাকাকালীন ১৯৭৫-৭৭ পর্যন্ত তাড়াশের অপেক্ষাকৃত নিচু এ জনপদটির সঙ্গে সিরাজগঞ্জ জেলা সদরের সংযোগ স্থাপনকারী একমাত্র রাস্তাটিকে বন্যার ভাঙনের হাত থেকে রক্ষার জন্য বিভিন্ন গ্রাম থেকে তাল বীজ সংগ্রহ করে এলাকাবাসীর সহায়তায় তাড়াশ সদর থেকে ভূঁইয়াগাতি পর্যন্ত ১৬ কিলোমিটার সড়কের দু’ধারে সারিবদ্ধভাবে ১০ ফুট পরপর প্রায় ১৪ হাজার তাল বীজ রোপণ করেন। ইতোমধ্যে অযত্ন-অবহেলায় ভূঁইয়াগাতি থেকে নিমগাছি পর্যন্ত চার কিলোমিটার সড়কের অনেক গাছই নষ্ট হয়ে গেছে।

তবে নিমগাছি থেকে তাড়াশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পর্যন্ত ৯ কিলোমিটার সড়কে এখনও ৪৬৩০টি তালগাছ প্রায় ৪২ বছর বয়স নিয়ে নির্মল সবুজ আর দর্শনীয় ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে আছে। যার স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৭৮ সালে গাজী আবদুর রহমান মিঞাকে বৃক্ষরোপণে সফলতার জন্য রাষ্ট্রপতি পুরস্কার দেওয়া হয়। শতবর্ষী মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান মিঞা বলেন, সৌন্দর্য বর্ধনমূলক এমন তাল বৃক্ষের সম্ভার দেশের আর কোথাও দেখা মেলা ভার। এখনও সময় আছে।

 

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..