শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৪১ অপরাহ্ন

ইষ্টার্ণগেটে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে আহত -১৮

জিয়াউল ইসলামঃ বিভাগীয় ব্যুরোপ্রধান খুলনাঃ
  • Update Time : মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৭৬ বার পঠিত

জিয়াউল ইসলামঃ বিভাগীয় ব্যুরোপ্রধান খুলনাঃ

পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের ডাকে ১৪ দফা দাবী আদায়ে পুর্বনির্ধারিত আটরা শিল্পাঞ্চালের খুলনা যশোর মহাসড়কের রাজপথ অবরোধ কর্মসুচিকে কেন্দ্র করে পুলিশের সাথে শ্রমিকদের দফায় দফায় সংঘর্ষের জাড়িয়ে পড়ে। ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে পুলিশের লাঠিচার্জে এবং শ্রমিকদের নিক্ষিপ্ত ইটপাটকেলের আঘাতে ৮পুলিশ এবং পুলিশের লাঠি চার্জে ৯ শ্রমিকসহ প্রায় ১৭/১৮জন আহত হয়েছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠিচার্চ, ২ রাউন্ড রাবার বুলেট এবং ৭ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। এ ঘটনায় পুলিশ পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের আহবায়ক সহ বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে। সর্বশেষ পরিস্তিতি শান্ত থাকলেও যে কোন পরিস্থিতির জন্য অতিরিক্ত পুলিশ ও জলকামান প্রস্তুত রাখা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দের এবং পুলিশ সুত্রে জানাগেছে, রাষ্ট্রায়ত্ব সকল পাটকল চালু, দূনীতি-ভূলনীতি-লুটপাট বন্ধ, পাটকল আধুনিকায়ন, স্থানীয় অস্থায়ী সহ সকল অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক-কর্মচারীদের বকেয়া সকল পাওনা এককালীন পরিশোধসহ ১৪ দফার দাবীতে বাম গণতান্ত্রিক জোটের ডাকা দেশব্যাপী অবরোধ কর্মসুচি বাস্তবায়নের লক্ষে পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের ব্যানারে গতকাল সোমবার সকাল ১০টা থেকে ইষ্টার্ণ জুট মিলগেটে একত্রিত হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় তারা মিলগেটে প্রস্তুতি সভা শেষে ১১টায় ইষ্টার্ণগেট এলাকায় পুর্ব নির্ধারিত অবরোধ কর্মসুচি শুরু করতে খুলনা যশোর মহাসড়কের ইষ্টার্ণগেট এলাকার রাপজথে অবস্থান নেয়। খুলনা যশোর মহাসড়ক অবরোধ কর্মসুচি চলাকালে বেলা সাড়ে ১১টায় পুলিশ অবরোধ প্রত্যাহার করে মিল অভ্যন্তরে চলে যেতে বলে। অবরোধকারীরা তাদের অবরোধ চালিয়ে যেতে চাইলে পুলিশের সাথে নেতৃবৃন্দ তর্কে জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে ধ্বস্তাধস্তি শুরু হলে পুলিশ লাঠিচার্চ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। শ্রমিকরা পার্শ্ববর্তী ইষ্টার্ণ জুট মিলের অভ্যন্তরে অবস্থান নিয়ে পুলিশের উপর ইটপাটকে নিক্ষেপ করলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ২রাউন্ড রাবার বুলেট এবং ৭রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে । পুলিশের লাঠিচার্চে এবং টিয়ারসেলে নামজা খাতুন(৬৫), খাদিজা বেগম(৪৫), হাফিজা বেগম(৫০), সুমি রায়(৪০), শেফালী খাতুন(৪২), লাকি বালা(৩৫), সুচিত্রা বিশ্বাস(৪৫), সাফিয়া (৪০), রহমত আলী(৩৩) নামের ৯ শ্রমিক আহত আহত হয়। অপরদিকে শ্রমিকদের নিক্ষিপ্ত ইটপাটকেলের আঘাতে এএসআই আব্দুর রহমান, পুষ্পল, পুলিশ সদস্য মোঃ শাহিন, কাইয়ুম, আরিফ, জীবন, মামুন ও মামুন শেখ সহ ৮ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। এ সময় সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে ২টি বাস এবং ১টি প্রাইভেট ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।
পুলিশ এ সময় পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের আহবায়ক এ্যাড. কুদরত ই খুদা, সদস্য সচিব জনার্দন দত্ত নান্টু, শমসের আলম, আলমগীর হোসেন, এম এ রশিদ, শেখ আবুল হোসেন, নওশের, শহিদুল, ওলিয়ার রহমান, রবিউল ইসলাম ও জাহাঙ্গীর সরদারসহ কয়েকজন শ্রমিককে পুলিশ আটক করেছে বলে দাবী শ্রমিকদের। শ্রমিকদের একাধিক সুত্র জানিয়েছেন রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল গুলোর মধ্যে খুলনার খালিশপুরের জুট মিলে দুই দফা গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের অর্থ পেলেও ইষ্টার্ণ জুট মিলের শ্রমিক কর্মচারীরা দীর্ঘদিন তাদের বকেয়া কোন পাওনা না পাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের ডাকা অবরোধে একত্রিত হয়ে আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ে।
এদিকে উদ্ভুত পরিস্থিতি ঘটনাস্থলে আসেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোঃ ফজলুর রহমান, ডিসি নর্থ মোল্যা জাহাঙ্গীর হোসেন, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর)সোনালী সেন, এসি দৌলতপুর জোন বায়জিত ইবনে আকবরসহ পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাগণ।
খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রবির কুমার বিশ্বাস পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের আহবায়কসহ কয়েকজনকে আটকের কথা স্বিকার করে বলেন শান্তিপুর্ণ পরিবেশে একটি চক্র উদ্দেশ্যে মূলক ভাবে পুলিশের উপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে এতে পুলিশের বেশ কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
এ ব্যাপারে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের(কেএমপি)এডিসি(উত্তর) সোনালী সেন বলেন, শ্রমিকরা পুলিশের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তৎপর হয়। এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু না বলে তিনি মিডিয়া সেলের মাধ্যমে জানান হবে বলে জানান।,

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..