শনিবার, ০২ Jul ২০২২, ০২:০৬ অপরাহ্ন

News Headline :
তাড়াশে দলিলকৃত জায়গা জোরপূর্বক দখল করার অভিযোগ পদ্মা সেতু দেখতে গেছেন স্বামী, বউ-শাশুড়িকে প্রেমিকের সঙ্গে ধরলেন জনতা প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে তাড়াশে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের মিলন মেলা অনুষ্ঠিত পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে তাড়াশে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ তাড়াশে আওয়ামীলীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত তাড়াশে মাদক সেবন করে মাতাল অবস্থায় ছাত্রদলের নেতা আটক তাড়াশে আওয়ামীলীগের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত অসুস্থ তফেরের পাশে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন খাঁন সারাদেশে বিএনপির অরাজকতার সৃষ্টির প্রতিবাদে তাড়াশে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল

নাটোরের সিংড়ায় ২ কি: মি রাস্তার জন্য দুর্ভোগ

মোঃরাজিবুল ইসলাম বাবু, স্টাফ রিপোর্টারঃ-
  • Update Time : সোমবার ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৬৩ বার পঠিত

উপজেলার সুকাশ ইউনিয়নের আগমুরশন থেকে জিয়াপাড়া দু কি:মি রাস্তার বেহাল অবস্থায় মানুষের জীবনযাত্রা থমকে পড়েছে। একটি রাস্তার জন্য দুর্ভোগ দুটি গ্রামের হাজার হাজার মানুষের। একটু বৃষ্টি হলেই রাস্তার বিভিন্ন অংশে পুকুর পানি জমে যায়। কোনো কোনো স্থানে পানি শুকিয়ে যেতে ১ মাস লাগে।

এমন দুরবস্থার জন্য মানুষের বাড়ি বাড়ি ডিঙিয়ে চলাচল করতে হয় পথচারীদের। অতিরিক্ত কাঁদা আর পানির কারনে কোনো যানবাহন তো দুরের কথা জুতা পায়ে হাটাই অসম্ভব ব্যাপার।

স্থানীয় দ্রুত রাস্তাটি পাকাকরণে এলজিইডি এবং স্থানীয় সংসদ সদস্যের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

মুলত এই রাস্তা দিয়ে মানুষ চলাচল করা যেমন কষ্টসাধ্য, তেমনি কৃষিনির্ভর এই অঞ্চলের কৃষকদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়। চলাচল অনুপযোগী রাস্তার জন্য অত্রাঞ্চলের কৃষকদের উৎপাদিত ধান, সবজিসহ অন্যান্য ফসল কৃষকরা বাজারজাত করতে পারে না।

কৃষকরা দীর্ঘদিন যাবত কৃষি পণ্যের নায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছেন। আধুনিক রাস্তার সুযোগ-সুবিধা থেকে বছরের পর বছর বঞ্চিত হয়ে আসছে এই ২টি গ্রামের প্রায় ৫ হাজার মানুষ।

স্থানীয় বাসিন্দা সোহেল রানাসহ অনেকেই জানান, দেশ স্বাধীনের পর থেকে মাটির এই রাস্তায় আজ পর্যন্ত পাকা হয়নি।
এই মাটির রাস্তার কারণে কেউ সহজে এই গ্রামগুলোর মেয়ে কিংবা ছেলেদের সঙ্গে বিয়েও দিতে চায় না। রাস্তার উন্নয়নের জন্য অনেকবার বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আবেদন করেছি, কিন্তু কোন লাভ হয়নি। এই রাস্তাটি দ্রুত পাকা করা খুবই প্রয়োজন।

স্থানীয়রা আরো জানায়, এই রাস্তার কারণে ঝিমিয়ে পড়েছে এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক চাকা। কারণ একটি অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা যদি ভালো না হয় সেই অঞ্চলের মানুষদের জীবনমানে কখনোই উন্নয়নের ছোঁয়া লাগে না।

স্থানীয় ওয়ার্ড সদস্য সোহরাব হোসেন জানান, দু এক জায়গায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তার পানি নেমে যাবার জন্য স্থানীয়দের সহযোগিতা দরকার। কিন্তু সহযোগিতা না করার জন্য রাস্তার দু এক জায়গায় এমন দুরবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা থাকলে চলাচলের ব্যবস্থা হতো।

সুকাশ ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মজিদ জানান, তিনি নির্বাচিত হবার পর এ রাস্তাটি চলাচলে উপযোগী করার জন্য মাটি কেটে দেন। পরবর্তীতে পাকাকরণের জন্য এলজিইডি এবং স্থানীয় সংসদ সদস্যকে অবহিত করেছেন। তবে এখন পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি।

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..