শনিবার, ০২ Jul ২০২২, ০৩:২২ অপরাহ্ন

News Headline :
তাড়াশে দলিলকৃত জায়গা জোরপূর্বক দখল করার অভিযোগ পদ্মা সেতু দেখতে গেছেন স্বামী, বউ-শাশুড়িকে প্রেমিকের সঙ্গে ধরলেন জনতা প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে তাড়াশে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের মিলন মেলা অনুষ্ঠিত পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে তাড়াশে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ তাড়াশে আওয়ামীলীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত তাড়াশে মাদক সেবন করে মাতাল অবস্থায় ছাত্রদলের নেতা আটক তাড়াশে আওয়ামীলীগের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত অসুস্থ তফেরের পাশে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন খাঁন সারাদেশে বিএনপির অরাজকতার সৃষ্টির প্রতিবাদে তাড়াশে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল

শিক্ষাঋণ দেয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত

সময়ের সংবাদ ডেস্কঃ
  • Update Time : রবিবার ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৪৮ বার পঠিত

মহামারী করোনার কারণে স্থবির দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা। এমন পরিস্থিতিতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাস কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তবে ডিভাইস না থাকায় অসচ্ছল অনেক শিক্ষার্থী ভার্চুয়াল ক্লাসে যুক্ত হতে পারছেন না। সে সকল শিক্ষার্থীদের চলতি মাসে ১০ হাজার টাকা শিক্ষাঋণ দেয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। জানা গেছে, সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের যে সকল শিক্ষার্থীর স্মার্টফোন কেনার সামর্থ্য নেই তাদের তালিকা শিক্ষা মন্ত্রণালয় পাঠিয়েছে ইউজিসি। তালিকা অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের স্মার্টফোন কিনে দিতে প্রায় ৫০-৬০ কোটি টাকা লাগবে। যা নিয়ে ইউজিসি ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মধ্যে আলোচনা চলছে। তবে সব কিছু ঠিক থাকলে চলতি মাসের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের স্মার্টফোন কিনে দিতে ১০ হাজার টাকা করে শিক্ষাঋণ দেয়া হতে পারে। সূত্র মতে, শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষাবর্ষ সমাপ্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত লোন পরিশোধের সুযোগ পাবেন। এক্ষেত্রে মাসিক ৫০০ টাকা করে পরিশোধ করার সুযোগ দেয়া হবে। এ বিষয়ে ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, ‘সকল শিক্ষার্থীকে অনলাইন ক্লাসে সম্পৃক্ত করতে এই উদ্যোগ হাতে নেয়া হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এ-সংক্রান্ত প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। সম্মতি পেলে আশা করছি, সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের স্মার্টফোন কেনার জন্য ১০ হাজার টাকা করে শিক্ষাঋণের ব্যবস্থা করতে পারব। তবে সবকিছুই নির্ভর করছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের ওপর।’ কাজী শহীদুল্লাহ আরও বলেন, ‘আমরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আর্থিকভাবে অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের তালিকা দিতে বলেছিলাম। অনেক বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা পাঠিয়েছে। তবে কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় অসঙ্গতি রয়েছে। সেগুলো সংশোধন করতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে চিঠি দেয়া হবে।

যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর তালিকা নিয়ে সমস্যা নেই আমরা সেগুলোর বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা যে শিক্ষাঋণের ব্যবস্থা করে দেব, তা অবশ্যই শিক্ষার্থীদের পরিশোধ করতে হবে। এক্ষেত্রে একজন শিক্ষার্থী তার শিক্ষাবর্ষের মেয়াদ থাকাকালীন লোন পরিশোধের সুযোগ পাবেন। শিক্ষার্থীরা লোন পরিশোধ না করলে সার্টিফিকেট পাবেন না।’ প্রসঙ্গত, দেশে সার্বিক করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। ২৬ মার্চ থেকে সারা দেশে সব অফিস-আদালত আর যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখা শুরু হয়। টানা ৬৬ দিন সাধারণ ছুটির পর ৩১ মে থেকে সীমিত পরিসরে অফিস খুলে যানবাহন চলাচল শুরু হলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধই থাকে। চলতি বছরে এইচএসসি পরীক্ষাও মহামারীর কারণে স্থগিত রাখা হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তে চলতি বছর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষাও নেয়া হবে না।

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..