ভোলার মনপুরার ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডব চলাকালীন সময় বুধবার রাতে প্রসব বেদনা নিয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয় এক প্রসূতি মা। ভোররাত ৪ টায় হাসপাতালের ডাক্তার ও নার্সদের প্রচেষ্টায় ওই প্রসূতি মায়ের কোলে একটি ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। পরে ডাক্তার ও নার্সরা ঝড়ের সঙ্গে মিলিয়ে ওই নবজাতক সন্তানের নাম দেন আম্পান।

ওই প্রসূতি মা হলেন, উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামের বাসিন্দা ছালাউদ্দিনের স্ত্রী সামিয়া (২৫)।মা ও শিশু দুজনেরই সুস্থ আছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, ঘূর্ণিঝড়ের রাতে হাসপাতালে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি হয় প্রসূতি মা সামিয়া। ঝড়ের কারণে তাকে ভোলা সদর হাসপাতালে নেওয়া যাচ্ছিল না। রাতভর ডাক্তার ও নার্সদের চেষ্টায় ভোর রাতে তার ছেলের জন্ম হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুর রশীদ জানান, ওই প্রসূতি মা আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়। পরে ওই প্রসূতি মা ছেলে সন্তান হলে আমরা নাম দিই আম্পান। মা ও আম্পান সুস্থ আছে, সকালে বাড়ি চলে গেছে।