মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:০৪ অপরাহ্ন

News Headline :
তাড়াশে পুকুর খননের প্রতিবাদে মডেল প্রেসক্লাবের মানববন্ধন তাড়াশে মডেল প্রেসক্লাবের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন তাড়াশে ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী ম্যাগনেট আঃলীগের মনোনয়ন পেয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ তাড়াশে বিজয় দিবস বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত তাড়াশে ভোট কেন্দ্র পরিবর্তন না করার দাবীতে মানববন্ধন তাড়াশে স্কুলের সভাপতি হলেন আওয়ামীলীগ নেতা জহুরুল ইসলাম মাষ্টার মাটির চুলায় খড়-কুটোর রান্না তাড়াশে বাল্য বিবাহ ও ধর্ষণকে লাল কার্ড তাড়াশ উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য পদ পেলেন জিল্লুর রহমান তাড়াশ উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য হলেন সাইদুর রহমান

গাইবান্ধায় করোনায় কোয়ারেন্টাইনে ১০৬২ জন, ছাড়পত্র পেয়েছে ১৬৫

সময়ের সংবাদ ডেস্ক
  • Update Time : বৃহস্পতিবার ৩০ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৩৭ বার পঠিত

শেখ মোঃ সাইফুল ইসলাম, গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি:

গাইবান্ধায় গত ২৪ ঘন্টায় বৃহস্পতিবার করোনা ভাইরাসে নতুন করে কেউ আক্রান্ত হয়নি।

তবে জেলায় করোনায় আক্রান্তের রোগীর সংখ্যা মোট ১৯ জন, এরমধ্যে একজন মারা গেছে, বাকিদের মধ্যে একজন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, অন্য ১৭ জন গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের আইসোলেসনে রয়েছেন।

এছাড়া ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইন শেষে ছাড়পত্র পেয়েছে ১৬৫ জন।

জেলা সিভিল সার্জন সুত্রে জানা যায়,জেলায় গত ২৪ ঘন্টায় ১ হাজার ৬২ জন চিকিৎসাধীন রোগী হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে।

এরমধ্যে সুন্দরগঞ্জে ২১, গোব্দিন্দগঞ্জে ২২৪, সদরে ১৭৩, ফুলছড়িতে ১৯২, সাঘাটায় ২৮২, পলাশবাড়িতে ২৮, সাদুল্যাপুর উপজেলায় ১৪২ জন।

অপরদিকে আরো জানা যায়, গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালের একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর প্যাথলজি ও বহির্বিভাগ গত বুধবার সন্ধ্যায় লকডাউন ঘোষণা করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

শনাক্ত হওয়া ওই টেকনোলজিস্টকে আইসোলেসন হাসপাতালে নেয়া হয়েছে, এ ঘটনায় হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে প্যাথলজি বিভাগের আরও চারজনকে।

করোনায়ায় শনাক্ত হওয়া ওই ব্যক্তির বাড়ি গাইবান্ধার পলাশবাড়ি উপজেলায়, তবে প্যাথলজি বিভাগ ও বহির্বিভাগ লক ডাউন হওয়ায় বৃহস্পতিবার থেকে বহির্বিভাগ সেবা জরুরী বিভাগের বকে নেয়া হয়েছে বলে হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে।

এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে যারা করোনার উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে, যেতো তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছিল প্যাথলজি বিভাগে।

পরে এসব নমুনা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মাধ্যমে পাঠানো হতো রংপুর মেডিকেল কলেজের করোনা শনাক্তের পিসিআর ল্যাবে।

আর এ কাজে যুক্ত ছিলো প্যাথলজি বিভাগের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) তিনজন, ল্যাব অ্যাটেনডেন্ট একজন ও এমএলএসএস একজন।

সম্প্রতি এক মেডিকেল টেকনোলজিস্টের করোনার উপসর্গ কাশি দেখা দিলে তার নমুনা সংগ্রহ করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

পরে করোনা পরীক্ষা করে তার করোনা শনাক্ত হওয়ার বিষয়টি ধরা পড়ে, এমতাবস্থায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ প্যাথলজি বিভাগ ও বহির্বিভাগ লক ডাউন ঘোষণা করে তালাবদ্ধ করে দিয়েছেন ।

করোনা শনাক্ত হওয়া ওই মেডিকেল টেকনোলজিস্টকে গাইবান্ধা আনসার ও ভিডিপি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের অস্থায়ী আইসোলেসন কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে।

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..