বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১২:৩৬ পূর্বাহ্ন

শূন্যে ভেসে শিকার করা পাখি

admin
  • Update Time : শনিবার ১২ অক্টোবর, ২০১৯
  • ৮৪ বার পঠিত

গোপালগঞ্জ জেলায় কাশিয়ানী উপজেলার ব্যাসপুর গ্রামে গিয়েছিলাম বেড়াতে। মেঠোপথ, গাছ-গাছালি, সবুজ ধানের ক্ষেত ও রাস্তার দুই পাশে বাঁশঝাড়- সব মিলিয়ে নয়নাভিরাম সবুজ প্রাকৃতিক শোভা মন কেড়ে নেয়। সেই মেঠোপথ ধরে একপা, দু’পা করে হাঁটছি। পথের ধারেই একটি বিশাল পুকুর। চারপাশ কলা আর নারিকেল গাছে ঘেরা। তারই মাঝে ছোট ছোট মাচায় লাউ ঝুলছে। মার্চ মাসের শেষ দিককার কথা। প্রচণ্ড গরম! একটু বিশ্রাম নিতে পুকুর পাড়ে বসলাম।

মৃদু বাতাসে শরীর জুড়িয়ে গেল। পুকুরে গাছের ডাল পোঁতা দেখে মনে হলো মাছের চাষ হয়। এর মধ্যে হঠাৎ একটি পাকড়া মাছরাঙা পাখি ডালের উপর উড়ে এসে বসলো। কিছুক্ষণ বসে হঠাৎ পানিতে ঝাপ দিয়ে মাছ শিকার করে ওই ডালেই ফিরে এলো। তারপর মুহূর্তের মধ্যে মুখে মাছ নিয়ে উড়ে চলল দিগন্তে। ছবি তোলার সুযোগ হলো না। ভাবলাম পাখিটি আবার আসবে। প্রতীক্ষায় বসে রইলাম। প্রায় এক ঘণ্টা পর পাখিটি আবার ফিলে এলো। এবার একসঙ্গে দুটি। বাঁশের খুঁটিতে একটি এসে বসলো। কন্টিনিউয়াস সাটারে বেশ কিছু ছবি তুললাম। এরপর পাখি দুটির মধ্যে ঝগড়া করা দেখে মনে পড়লো এখন তাদের প্রজননকাল।

পাকড়া মাছরাঙা Cerylidae পরিবারের অন্তভূক্ত ৩১ সে.মি. দৈর্ঘ্যের জলার পাখি। দেহে কালো ফুটকি ও ফোটাওয়ালা দাগ আছে। মাথায় কালো চাঁদি ও ঝুটিতে সাদা ডোরা রয়েছে। এদের ভ্রু সাদা ও চোখ প্রশস্ত কালো ডোরা। ডানায় ও লেজে কালো-সাদা বর্ণ বিন্যাস আছে। বুক ছাড়া দেহের নিচের অংশ সাদা। চোখ বাদামি। পা, পায়ের পাতা ও নখ বাদামি-কালো। ৪টি উপপ্রজাতির মধ্যে বাংলাদেশে একটি পাওয়া যায়।

পাকড়া মাছরাঙা নদী, খাল, পুকুর, জলাধার, প্লাবিত খাড়ি ও ডোবায় বিচরণ করে। সাধারণত জোড়ায় থাকে। শিকার ধরার আগে পানির উপরে বাতাসে ভেসে থাকে। উপর থেকে শিকারের দেখা পেলে ঝাঁপ দিয়ে ঠোঁটে করে নিয়ে আসে। এদের খাদ্যতালিকায় ছোট মাছ, ব্যাঙাচি, জলজ পোকা-মাকড় ও টিকিটিকি রয়েছে। এরা শিকারের সময় বেশির ভাগ বাতাসে ভেসে বেড়াতে পছন্দ করে। এদের প্রজননকাল মার্চ ও এপ্রিল মাস। তবে অঞ্চল ভেদে তারতম্য আছে। প্রজননকালে নদীর ধারে বা পুকুড়ের খাড়া মাটিতে সুড়ঙ্গ করে বাসা বানায়। নিজেদের বানানো বাসায় স্ত্রী পাখি ৫-৬টি ডিম পাড়ে। নিজেই তা  দিয়ে বাচ্চা ফোটায়।

পাকড়া মাছরাঙা বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি। বিশ্বে ও বাংলাদেশে এরা বিপদমুক্ত পাখি হিসেবে রয়েছে। দেশের সব জায়গায় নদী, হাওর ও জলাশয়ের ধারে দেখা যায়। এ ছাড়াও আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য ও এশিয়ার সব অঞ্চলে এদের বিচরণ রয়েছে।

বাংলা নাম:  পাকড়া মাছরাঙা

ইংরেজি নাম: Pied Kingfisher

বৈজ্ঞানিক নাম: Ceryle rudis

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..