সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৫৫ পূর্বাহ্ন

তাড়াশে সবজি চাষ করে দারিদ্র জয়

admin
  • Update Time : শুক্রবার ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ১০৯ বার পঠিত

গোলাম মোস্তফা, নিজস্ব প্রতিবেদক, সময়ের সংবাদ:

একসময় সংসারে অভাব ছিল নিত্যসঙ্গী। অবশেষে মাত্র দেড় বিঘা জমিতে সবজি চাষ করে দারিদ্র্যকে জয় করেছেন সিরাজগঞ্জের তাড়াশের খোকন আলী (৩৬) নামে এক প্রান্তিক কৃষক। তিনি উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের প্রত্যন্ত হামিদপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে। নিজের ইচ্ছা শক্তি আর কঠোর পরিশ্রমকে কাজে লাগিয়ে তিনি এখন সাবলম্বী।

সরেজমিনে হামিদপুর গ্রামের বিস্তীর্ণ মাঠের মধ্যে গিয়ে দেখা যায়, সবজি ক্ষেত দেখভাল ও পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন খোকন আলী। সঙ্গে স্ত্রী খুশি পারভীন, দু’জন কৃষি শ্রমিক এবং প্রতিবেশীরা রয়েছেন। খোকন আলী এবং কৃষি শ্রমিক বিভিন্ন সবজি গাছে পানি দিচ্ছেন। স্ত্রী ও প্রতিবেশীরা সবজি তুলে এক জায়গায় জড়ো করছেন স্থানীয় হাট-বাজারে পাইকারি ও খুচরা বিক্রির জন্য। জমিতে বাঁধা কপি, ফুলকপি, বেগুন, আলু, শসা, লাউ, মিষ্টি লাউ, শিম, বরবটি, টমেটোসহ নানা শীতকালীন সবজি চাষ করে থাকেন তিনি। এর মধ্যে কিছু সবজি বেচা-বিক্রি হয়ে গেছে। এখনও কয়েক ধরনের সবজি ক্ষেতে রয়ে গেছে।

খোকন আলী জানান, দেড় বিঘা ফসলি জমি আর মাথা গোজার ছোট্ট একটা বাড়ি ছাড়া কিছুই ছিলোনা তার। বছর দুয়েক আগেও জমিতে ইরি-বোরো ধানের আবাদ করতেন তিনি। একই সঙ্গে অন্যের জমিতেও দিন মজুরের কাজ করতেন। তবুও সংসারে অভাব-অনটন লেগেই থাকত সবসময়। খেয়ে না খেয়ে দিন কাটতো পরিবার পরিজন নিয়ে। অবশেষে ধানের আবাদ বাদ দিয়ে সবজি চাষ শুরু করেন।

তিনি আরো জানান, ইতোমধ্যে আগাম জাতের শীতকালীন সবজি বিক্রি করেছেন ৩ লক্ষাধিক টাকার। ক্ষেত থেকে এখনও আনুমানিক দেড় লক্ষাধিক টাকার সবজি বিক্রি করা যাবে। মূলত সঠিক সিদ্ধান্ত আর কঠোর পরিশ্রমকে কাজে লাগিয়ে তিনি এখন লাখপতি। মাটির ঘরের যায়গায় ইটের পাকা বাড়ি হয়েছে তার।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. সাইফুল ইসলাম জানান, খোকন আলী উপজেলা পর্যায়ে কৃষি বিভাগ হতে এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সফল সবজি চাষী হিসেবে সন্মাননা পেয়েছেন। তিনি অন্যান্য কৃষকদেরও শুধু ধান চাষের দিকে না ঝুঁকে অল্প পূঁজি খাটিয়ে সবজি চাষাবাদের পরামর্শ দেন।

 

Please follow and like us:

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..